Dr. Abul Kalam Azad Basharজুম্মা খুৎবা

জুমার খুৎবা ২৩.০৮.২০১৯ জাতির পিতার ইতিহাস নিয়ে আলোচনা । পর্ব-০৩

জুমার খুৎবা ২৩.০৮.২০১৯ইং
আবুল কালাম আজাদ বাশার

আমরা গত জুম্মায় পর্যন্ত যেখানে এসেছিলাম, ইব্রাহীম (আ.) কে তারা অপরাধী সাব্যস্ত করেছে, করে আগুনে ফেলার জন্য তারা লাকড়ী সংগ্রহ করেছে, তারপরে হাইজান নামক একজন অগ্নিপজুক পারস্যে, তার পরামর্শে মোতাবেক চড়কি বানিয়েছে, চড়কির উপরে উনাকে তুলে বসিয়েছিল আমার মনে হয় আমরা এই পর্যন্ত এসেছিলাম। তা শুনতে গত জুম্মার খুৎবা শুনার জন্য ঘুরে আসবেন।

হাদিসে এসেছে, যে নামায এর জন্য বসে থাকবে সে ততক্ষণ নামায এর সাওয়াব পেতে থাকবে।
তারা সিদ্বান্ত নিল ইব্রাহিমকে আগুনে জ্বালিয়ে দাও, যদি তোমরা তোমাদের দেবতাদের সহযোগীতা করতে চাও। দেবতাদের বাচিয়ে রাখতে চাও কারণ ইব্রাহিম যদি বেঁচে থাকে যে যুক্তি দিয়ে কথা বলে ঐ যুক্তির সাথে পেড়ে উঠা আমাদের পক্ষে সম্বভ নয়। সুতরাং পেশীবাদি শক্তি দিয়ে পাবলিকরে কয়দিন ধমায়ে রাখা যাবে। হতে পারে ইব্রাহিম (আ.) এর যুক্তির কারণে দর্শনের কারণে মানুষ ইব্রাহিমের দলে যোগদিতে থাকবে। আর যদি লোকজন দলে দলে ইব্রাহিম (আ.) দলে যোগ দিয়ে দেয় তখন তোমাদের দেবতাদের মন্দিরে আর থাকবে না, তাই তারে জ্বালিয়ে দাও পুড়িয়ে দাও লাকড়ি সংগ্রহ করা হল আগুন জ্বালিয়ে দেয়া হল। চড়কিতে বসানো হল হাত পা বেধে ইব্রাহিম (আ.) চড়কির উপরে বসে মনে মনে ভাবছেন আল্লাহ দ্বীনের পক্ষেতো কথা বলেছি তাদেরকে আমি বুঝিয়েছি ….. এই মূর্তি গুলি তোমাদের বানায় নাই তোমাদের বানিয়েছেন কে?
আমি তাদের কে বুঝিয়েছি বলেছিলাম এই মূর্তির সামনে মাথা নত কেন কর, তারা কোন উপকারে আসবে না তারা তোমাদের কোন ক্ষতিও করতে পারে না, তোমাদের জন্য বড় আফছুছ, তোমরা মহান আল্লাহকে বাদ দিয়ে মূর্তির সামনে মাথা নত করছ। আমিত তাদের হিতাকাঙ্ক্ষী হয়ে ভাল কিছু কথা বলেছি, কিন্তু তারা বন্ধু চিনতে ভুল করল তারা সে আমাকে আগুনে পোড়ানোর জন্য লাকড়ী সংগ্রহ করে আগুন লাগাইছে, কিন্তু আমি আমার পক্ষে আমার বাবাকেও পায়নাই মাকেও পায় নাই বন্ধু বান্ধব কাউকে পাই নাই, কিন্তু আমি যার কথা গুলু বলেছি তিনি আল্লাহ আমার পক্ষে আছেন।
তাই চড়কির মাঝে বসে ইব্রাহিম (আ.) দুনিয়ার মানুষ থেকে পৃথক হইয়া আল্লাহ মুখি হলেন, হাজার হাজার মানুষ অপেক্ষা ইব্রাহিমকে কি ভাবে আগুনে পোড়ানো হয় তা দেখার জন্য। ইব্রাহিম (আ.) মানুষ দিকে আর কোন রুজু নাই বরং রুজু হলেন তিনি আল্লাহর দিকে সেখানে তিনি বলছেন…………………
হে আমার রব, আকাশে তুমি একা তামাম আকাশ জগত , ভু মণ্ডল নভ মণ্ডল তুমি একাই পরিচালনা করছ , আর জমিনের দিকে তাকায়ে দেখ তোমার গোলাম ইব্রাহিমও একা, মানুষের অভাব নাই, জমিনে অনেক মানুষ কিন্তু তোমার গোলামি করার মত মানুষ নাই, আমি একা। এখন তারা হাজার হাজার লাখ লাখ আমি একার বিরুদ্ধে সিদ্বান্ত নিয়েছে, জোড় যবর দস্তি করে আমাকে জালিম বানাইছে , ফতোয়া দিছে
আমি নাকি জালিম, আমি নাকি অপরাধী, সবাই মিলে এখন আমাকে আগুনে পোড়ায়ে দিবে সিদ্বান্ত নিয়ে তারা চড়কিতে বসাইছে তবে তোমার উপর আমার ভরসা আছে ।।

حَسْبُنَا اللَّهُ وَنِعْمَ الْوَكِيلُ نِعْمَ الْمَوْلَىٰ وَنِعْمَ النَّصِيرُ
HasbunAllahu wa ni’mal wakeel; Ni’mal maula wani’man naseer.
Allah is Sufficient for us, and He is the Best Guardian; What an excellent Protector and what an excellent Helper.” (3:173 & 8:40)
কার্য নির্বাহ কার্য সম্পাদন করার জন্য আমার আল্লাহ আমার জন্য যথেষ্ট, উনি হলেন সর্বোত্তম অভিবাবক সর্বোত্তম বন্ধু এবং তিনি কত চমৎকার সাহায্য কারী

তারা


https://www.youtube.com/watch?v=p5CdL5joB54
Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close